চাকরির খবর

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সিলেবাস ২০২৩ | মান বণ্টন ও বিষয়

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সিলেবাস ২০২৩, সাজেশন ও বিষয় ভিত্তিক মান বণ্টন (DPE Primary school teacher exam syllabus, mark distributions) নিয়ে এখানে বিস্তারিত আলোচনা করা হলোউল্লেখ্য, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখে প্রথম ধাপে রংপুর, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২৩ (১ম) প্রকাশিত হয়েছে। এসব বিভাগে আবেদনের সময় শেষ হয়েছে ২৪ মার্চ ২০২৩। দ্বিতীয় ধাপে ময়মনসিংহ, খুলনা ও রাজশাহী বিভাগের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে ২৩ মার্চ ২০২৩। নিয়োগ পরীক্ষার (লিখিত) তারিখ এখনো ঘোষণা করেনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (http://www.dpe.gov.bd)। তবে শিগগিরই পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা হবে বলে জানা গেছে। এছাড়া তৃতীয় ধাপের ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ হতে যাচ্ছে শিগগিরই।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সিলেবাস, নম্বর বণ্টন, বিষয় ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি নিয়ে এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০২৩

নিয়োগ প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (DPE)
পদ সহকারী শিক্ষক
পদের সংখ্যাসারা দেশে ৭০০০+ পদ
চাকরির ধরন সরকারি চাকরি
নিয়োগ পদ্ধতিবিভাগ ভিত্তিক ৩ ধাপে নিয়োগ
পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা হয়নি
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০২৩

শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার বিষয় ও নাম্বার বণ্টন

নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতির শুরুতেই প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সিলেবাস সম্পর্কে জেনে নিন। লিখিত পরীক্ষা হবে MCQ পদ্ধতিতে। এমসিকিউ পরীক্ষার বিষয়গুলো হলো বাংলা-২০, ইংরেজি-২০, গণিত-২০, সাধারণ জ্ঞান (বাংলাদেশ বিষয়াবলি, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি, বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি) ২০ নম্বর। প্রতিটি প্রশ্নের মান ১। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা হবে

বিষয় বিবরণ
বাংলা (২০)বাংলা সহিত্য (৩),
বাংলা ব্যাকরণ (১৭)
ইংরেজি (২০)গ্রামার (১৯),
লিটারেচার (১)
গণিত (২০)পাটিগণিত (৮/৯),
বীজগণিত (৫/৬),
জ্যামিতি (৫)
সাধারণ জ্ঞান (২০)বাংলাদেশ বিষয়াবলী (৭/৮),
আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী (৫/৬),
সাম্প্রতিক বিষয়াবলী (৫/৬)
মৌখিক পরীক্ষা / ভাইভা২০ নাম্বার
মোট =১০০ নাম্বার
শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার বিষয় ও নাম্বার বণ্টন / মানবণ্টন

পরীক্ষা পদ্ধতি, সময় ও কাট মার্কস

প্রথমে ৮০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা হবে এমসিকিউ (বহু নির্বাচনী) পদ্ধতিতে। এমসিকিউতে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা হবে ২০ নম্বরের। এসসিকিউ পরীক্ষার বিষয়গুলো হলো বাংলা-২০, ইংরেজি-২০, গণিত-২০, সাধারণ জ্ঞান (বাংলাদেশ বিষয়াবলি, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি, বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি) – ২০ নম্বর।

  • প্রতিটি প্রশ্নের মান ১।
  • প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর (কাট মার্কস) কাটা হবে। পরীক্ষার সময় বরাদ্দ ১ ঘণ্টা।

বাংলা

বাংলা বিষয়ের দুটি অংশ—সাহিত্য আর ব্যাকরণ। বাংলা সাহিত্য থেকে সাধারণত চার-পাঁচটি প্রশ্ন আসে। বাংলার সাহিত্য অংশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ টপিকস হলো—প্রাচীন যুগের চর্যাপদ, মধ্যযুগ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, জসীমউদ্দীন, শামসুর রাহমান, মাইকেল মধুসূদন দত্ত, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, বিভিন্ন সাহিত্যিকের উক্তি, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বিভিন্ন বিখ্যাত গ্রন্থ, বিখ্যাত পত্রিকা ও সাময়িকীর সম্পাদকের নাম ও প্রতিষ্ঠা সাল ইত্যাদি।

বাংলায় ব্যাকরণ অংশ থেকে তুলনামূলক বেশি প্রশ্ন আসে। তাই ব্যাকরণ অংশে বেশি জোর দিতে হবে। এই অংশের গুরুত্বপূর্ণ টপিকস—ব্যাকরণ, বর্ণ ও ধ্বনি, সন্ধি, বাক্য ও বানান শুদ্ধি, দ্বিরুক্ত শব্দ, সমাস, প্রকৃতি ও প্রত্যয়, শব্দ, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, পদ প্রকরণ, কারক ও বিভক্তি, বাক্য প্রকরণ, উপসর্গ, অনুসর্গ, কাল, যতিচিহ্ন, এককথায় প্রকাশ, বাগধারা, প্রবাদ প্রবচন ইত্যাদি।

ইংরেজি

ইংরেজির দুটি অংশ—গ্রামার ও লিটারেচার। বিগত সালের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, লিটারেচার অংশ থেকে মাত্র দু-তিনটির মতো প্রশ্ন এসেছে। আবার কোনো কোনো পরীক্ষায় একটি প্রশ্নও আসেনি। তবু সেরা প্রস্তুতির জন্য এগুলোও পড়তে হবে; বিশেষ করে বিগত সালে আসা প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ, বিসিএস, নন-ক্যাডারসহ বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো দেখতে পারলে ভালো হয়।
গ্রামার অংশের প্রস্তুতিতে বাড়তি গুরুত্ব দিতে হবে।

গুরুত্বপূর্ণ টপিকস : (1) Parts of Speech, (2) Identification of Parts of Speech, (3) Interchange Parts of Speech, (4) Phrase & Idioms, (5) Gerund & Participle, (6) Number & Gender, (7) Preposition, (8) Tense, (9) Degree, (10) Right form or Verb, (11) Voice & Narration, (12) Subject-Verb Agreement, (13) Conditional Sentence, (14) Synonym, Antonym, (15) Spelling, (16) Analogy, (17) Translation ইত্যাদি।

গণিত

গণিতে কিছু নির্দিষ্ট টপিকস থেকে প্রতিবছরই প্রশ্ন আসে। গণিতকে তিনটি অংশে ভাগ করা যায়। পাটিগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি। তবে পাটিগণিত থেকেই ১০-১২টি প্রশ্ন আসে। তাই এ অংশ সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। গণিতের প্রস্তুতির জন্য পঞ্চম-অষ্টম শ্রেণির গণিত বই থেকে পাটিগণিত করবেন। পাটিগণিতের যেসব টপিকস থেকে প্রশ্ন আসে তা হলো—সংখ্যার ধারণা, সুদ-আসল, লাভ-ক্ষতি, শতকরা, অনুপাত, সমানুপাত ও মিশ্রণ, মৌলিক ও বাস্তব সংখ্যা, ঐকিক নিয়ম, বয়স, ভগ্নাংশ, গড়, পরিমাপ, সময় ও দূরত্ব, লসাগু ও গসাগু, নৌকা ও স্রোতের বেগ, ধারা (সিরিজি) ইত্যাদি।

বীজগণিত থেকে সাধারণত তিন-চারটি আসে। বীজগণিতের প্রস্তুতির জন্য যেসব টপিকস বেশি গুরুত্ব দিতে হবে তা হলো—বীজগাণিতিক রাশি, উৎপাদকে বিশ্লেষণ, মান নির্ণয়, এক চলক ও দ্বিচলকবিশিষ্ট সমীকরণ, সূচক, লগারিদম, সেট ইত্যাদি। গণিতের শেষ অংশ হলো জ্যামিতি। জ্যামিতি থেকে তিন-চারটি প্রশ্ন আসে। যেসব টপিকস থেকে প্রশ্ন আসে তা হলো—বাহু ও কোণের পরিমাপ, ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ ও বহুভুজ, বৃত্ত ও পরিমিতি। গণিতে নিয়মিত অনুশীলনই সফলতা আনতে পারে।

সাধারণ জ্ঞান

সাধারণ জ্ঞানের মধ্যে সাধারণত তিনটি বিষয়ের প্রশ্ন আসে—বাংলাদেশ বিষয়াবলি, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি ও সাধারণ বিজ্ঞান।

বাংলাদেশ বিষয়াবলি

► বাংলাদেশ বিষয়াবলির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ টপিকস হলো—বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান, আয়তন ও সীমানা, পাহাড়-পর্বত, দ্বীপ, উপত্যকা, হ্রদ ও জলপ্রপাত, জনসংখ্যা ও উপজাতি, বাংলাদেশের ঐহিত্য, স্থাপনা, পুরাকীর্তি, নিদর্শন ও সংস্কৃতি, বাংলাদেশের ইতিহাস, প্রাচীন আমল ও ইংরেজ শাসন, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা, সংবিধান ও প্রশাসনিক কাঠামো, কৃষি, শিল্প, খনিজ ও বনজ সম্পদ, শিল্প-বাণিজ্য, অর্থনীতি ও সমীক্ষা, বাংলাদেশের অর্জন, খেলাধুলা ও শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গন ইত্যাদি।

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি

► আন্তর্জাতিক বিষয়াবলির জন্য গুরুত্বপূর্ণ টপিকস হলো—পৃথিবী পরিক্রমা, মহাদেশ পরিচিতি, অঞ্চল পরিচিতি, ভৌগোলিক উপনাম, নতুন ও পুরনো নাম, সীমারেখা, প্রণালি, দ্বীপ, সাগর-মহাসাগর, শিল্প-বাণিজ্য ও অর্থনীতি, বিশ্বসভ্যতার ইতিহাস, যুদ্ধবিগ্রহ ও বিপ্লব, চুক্তি, সনদ ও সম্মেলন, আন্তর্জাতিক সংগঠন ও সংস্থা, খেলাধুলা ইত্যাদি।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়াবলি

► বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়াবলির জন্য গুরুত্বপূর্ণ টপিকস হলো—পদার্থবিজ্ঞান (বিভিন্ন পদার্থের স্বরূপ, পদার্থের অবস্থার পরিবর্তন, বিভিন্ন রাশির একক, বিভিন্ন পরিমাপক যন্ত্র, আলোর প্রকৃতি, শব্দের সীমা, বিভিন্ন রশ্মির ব্যবহার ও প্রভাব, বিভিন্ন শক্তির রূপান্তর, পারমাণবিক শক্তি ও নবায়নযোগ্য শক্তি); রসায়ন বিজ্ঞান (মৌলিক ও যৌগিক পদার্থ, পরমাণু, নিষ্ক্রিয় গ্যাস, পারমাণবিক সংখ্যা, সংকেত, জৈব এসিড, দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত পদার্থের সংকেত ও নাম); উদ্ভিদবিজ্ঞান (বিভিন্ন চাষাবাদের বৈজ্ঞানিক নাম, বিভিন্ন ফসলের জাত, বিভিন্ন মৌসুমের শস্য, উদ্ভিদের প্রয়োজনীয় উপাদান ও উপাদানের প্রভাবজনিত রোগ); প্রাণিবিজ্ঞান (বিভিন্ন শাখার জনক, রোগ-জীবাণুর আবিষ্কারক, প্রাণিজগতের বৈচিত্র্য), মানবদেহ, সংক্রামক রোগ ও চিকিৎসা, খাদ্য ও পুষ্টি; ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান (পরিবেশদূষণের জন্য দায়ী উপাদান, সৌরজগৎ, গ্রহ-উপগ্রহ, জোয়ার ভাটা, স্থানীয় সময়ের পার্থক্য, ভূপৃষ্ঠের বিভিন্ন পদার্থের উপাদানের পরিমাণ); কম্পিউটার ও তথ্য-প্রযুক্তি (কম্পিউটারের ইতিহাস, কম্পিউটারের প্রকারভেদ, বিভিন্ন প্রজন্মের কম্পিউটারের বৈশিষ্ট্য, কম্পিউটারের ভাষা, কি-বোর্ড সম্পর্কে ধারণা, সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার সম্পর্কে ধারণা, এমএস ওয়ার্ড, এমএস এক্সেল সম্পর্কে ধারণা, ই-মেইল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইন্টারনেট, বিভিন্ন আবিষ্কার ও আবিষ্কারক)।

আরো দেখুন : প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২৩

Rate this post

প্রাসঙ্গিক

3 Comments

  1. স্যার ২য় ধাপে কোন কোন জেলায় পরিক্ষা হবে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page