ফিচার

স্টুডেন্ট ভিসা আবেদন রিফিউজ হয় যেসব কারণে

সাধারণত যেসব কারণে ‘ভিসা কর্মকর্তা’ বা কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীর ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যান করতে পারে-
* আবেদনকারীর আইইএলটিএস, টোফেল, জিআরই অথবা স্যাটে প্রয়োজনীয় টেস্ট স্কোর (প্রযোজ্য হলে) যদি না থাকে।
* আবেদনকারী বিদেশে পড়াশোনা করতে যাচ্ছেন, তা নিশ্চিত না হলে। শিক্ষার্থী অর্থ উপার্জনের উদ্দেশ্যে যাচ্ছেন_এমন সন্দেহ তৈরি হলে ভিসা দেয় না কর্তৃপক্ষ।
* টিউশন ফি, থাকা-খাওয়া এবং অন্যান্য ব্যয়ভার বহনের আর্থিক সচ্ছলতার ‘সঠিক’ কাগজপত্র না থাকলে।
* ভিসা অফিসার যদি মনে করেন পড়াশোনা শেষে শিক্ষার্থীর বাংলাদেশে ফিরে আসার সম্ভাবনা নেই অথবা শিক্ষার্থী বিদেশে অভিবাসী হওয়ার উদ্দেশ্যে যাচ্ছেন।
* আবেদনকারীর কোনো আইনি ঝামেলার প্রমাণ পেলে।
* ভিসা কর্মকর্তাকে কোনো মিথ্যা তথ্য দিলে।
* ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট ফরমে কোনো মিথ্যা বা ভুল তথ্য দিলে।
* আবেদনকারী যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির অনুমতি পেয়েছেন, সে প্রতিষ্ঠানটির অনুমোদন না থাকলে।
* আবেদনকারী যে বিষয়ে পড়াশোনা করতে যাচ্ছেন, সে বিষয়ে কিংবা এর ‘প্রয়োগ ক্ষেত্র’ সম্পর্কে যথাযথ ধারণা না থাকলে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় এবং এর অবস্থান সম্পর্কেও ধারণা থাকতে হবে।
* কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট কোনো কাগজপত্র দেখতে চাইলে তা দেখাতে ব্যর্থ হলে।
* ভিসা সাক্ষাৎকারে অপরিচ্ছন্ন, অশালীন পোশাক পরে গেলে, সাক্ষাৎকারের আদবকেতা না মানলে কিংবা আচরণগত কোনো সমস্যা দেখা গেলে।
* ভিসা সাক্ষাৎকারের বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ইংরেজিতে প্রশ্ন করা হয়, ঠিকঠাক উত্তর দিতে না পারলে। প্রশ্নের জবাব সংক্ষিপ্ত হওয়াই ভালো, অপ্রাসঙ্গিক জবাব ভিসা কর্মকর্তার বিরক্তির উগ্রেক করবে এবং এতে প্রশ্নের সংখ্যা বাড়বে।
গ্রন্থনা: হাবিবুর রহমান তারেক
সূত্র: কালের কণ্ঠ । সিলেবাসে নেই । তারিখ: ১৩/৭/২০১২

Rate this post

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button